আম-পিডিয়া

  • 3
    Shares

অর্ণব পাল সন্তু: ‘‘বাঙ্গালমুলুক থেকে কাঁচা আম এসেছে। কয়লার আগুনে আম পোড়ানো হচ্ছে। শরবত বানানো হবে। সৈন্ধব লবণ, আখের গুড়, আদার রস, কাঁচা মরিচের রস আলাদা আলাদা পাত্রে রাখা। আমের শরবতে এইসব লাগবে। দু‘জন খাদ্য পরীক্ষক প্রতিটি উপাদান চেখে দেখছেন। তাঁদের শরীর ঠিক আছে। মুখে কষা ভাব হচ্ছে না, পানির তৃষ্ণাবোধও নেই। এর অর্থ উপাদানে বিষ অনুপস্থিত। সম্রাট বাবরকে বিষ খাইয়ে মারার চেষ্টা করা হয়েছিল। এরপর থেকেই বাড়তি সতর্কতা। ’’-বাদশাহ্ নামদার- হুমায়ুন আহমেদ


ফলের রাজা আম- রাজকীয় ফল। আম নিয়ে ‘আম’ জনতার উচ্ছাসের শেষ নেই। আম সর্ব অবস্থায় ভক্ষনযোগ্য। গুটি আম থেকে শুরু করে পাকা, পচা আমের আমসস্ত্ব পর্যন্ত! আমের জ্যাম, জেলি, আঁচার, আম সত্ব, জুস, আম-দুধ ইত্যাদি ইত্যাদি। ‘আমাশয় ‘ আম থেকে সৃষ্ট না হলে ও আমের ছাল আমাশয় প্রতিরোধক। দুই চামচ ছালের রস, একটু চিনি ও এক কাপ দুধ একত্রে মিশিয়ে কয়েকবার খেলে রক্ত আমাশয় ভাল হয়ে যায়।

আমের মৌসুমে আমাদের শৈশব কেটেছে আমের পিছনে। গুটি আমের শুরু থেকে আম বতি হওয়া পর্যন্ত প্যান্টের পকেটে থাকত, চাকু কিংবা ঝিনুক সাথে ঝাল, নুন, মশলা। ঝড়ে আম কুড়ানো, আম চুরি ছিল নির্মল আনন্দ। মৌসুম শেষে ফেলে দেয়া আমের আঁটি থেকে ভেঁপু শৈশবের প্রিয় খেলনা।

বসন্তের শেষে আম গাছে মুকুল আসে, অপূর্ব ঘ্রান আর গাছময় মুকুলের সৌন্দর্যের মুল্য নেহাৎ কম নয়। দেখতে দেখতে আম গুটি হয়, বড় হয়, পাকে, আশ্বিন মাস পর্যন্ত!

আমের মতো আকর্ষণীয় ফল গোটা পৃথিবীতে নেই। আম সবাইকে কাছে টানে। কচি আম থেকে পাকা আম পর্যন্ত থোকায় থোকায় গাছে ঝুলে থাকা আম সবাইকে আকৃষ্ট করে।

বর্তমানে ভারত, পাকিস্তান ও ফিলিপাইনের জাতীয় ফল এটি। বাংলাদেশে ধান ও পাটের পর আম চাষকে গুরুত্ব দেওয়া হয়।

গবেষণায় বলছে, আমের আদি নিবাস বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং আশপাশের মিয়ানমার, ত্রিপুরা ও মিজোরামে। তবে বিশারদ ও ফলবিজ্ঞানীদের মধ্যে এর জন্মস্থান নিয়ে মতবিরোধ আছে। সিংহভাগ বিশেষজ্ঞের রায়, আমের আদি জন্মভূমি ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় হিমালয়সংলগ্ন এলাকা, মিয়ানমার, বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম ও মালয়ে। বিরোধীদের ভাষ্যে, ফলটি এসেছে ইন্দো-চায়না থেকে। অর্থাৎ ভিয়েতনাম, চীন, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া, লাওস ও ইন্দোনেশিয়া অঞ্চল এর আদি নিবাস।

আম ছিল পাহাড়ি ও বুনো ফল। সেখান থেকে সুমিষ্ট জাতগুলো সংগ্রহ করে বাড়ির আঙিনায় রোপণ শুরু করে মানুষ। এভাবেই এটির চাষাবাদের সূচনা। আবাদ হচ্ছে ৬ হাজার বছর আগে থেকে। তবে আমের উৎপত্তি নিয়ে কিছু লোককথা আছে। যেমন ভারতীয় প্রাচীন উপাখ্যানে বলা হয়, এটি এসেছে স্বর্গ থেকে। লঙ্কারাজ রাবণপুত্র মেঘনাদ ইন্দ্রপুরী জয় করার পর সেই স্থানে সহস্রাধিক ফলের সঙ্গে পরিচিত হন। তিনি সেখানকার শ্রীফল খান এবং সেটিকেই শ্রেষ্ঠ বিবেচনা করে লঙ্কায় নিয়ে আসেন। সঙ্গে আনেন ওই ফলের বীজ ও চারা। শ্রীফলই আম। সেখান থেকেই তা ছড়িয়ে পড়ে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে। কীভাবে বিস্তৃত হলো, সে বিষয়েও উপাখ্যান আছে। রাজা রামচন্দ্র যখন লঙ্কা জয়ের উদ্দেশে এগোচ্ছিলেন, তখন হনুমান ছিলেন অগ্রবর্তী দলে। সমুদ্র পাড়ি দিয়ে লঙ্কায় পৌঁছানোর পর আমবাগান দেখতে পান হনুমান। গাছে গাছে পাকা আম ঝুলছিল। সেই ফলের স্বাদ তাকে বিমোহিত করে। আম খেয়ে খেয়ে উত্তর দিকে আঁটি ছুড়তে লাগলেন হনুমান। তা সমুদ্র পার হয়ে তামিলনাড়ু অঞ্চলে গিয়ে পড়ল। সেখান থেকে আম ধীরে ধীরে মুম্বাই, অন্ধ্রপ্রদেশ, উত্তর প্রদেশ, বিহার, সিন্ধু, পাঞ্জাব ও বাংলায় এসে পৌঁছেছে। এই উপাখ্যান পৌরাণিক।

ইতিহাস বলে, মুসলিম মিশনারিদের মাধ্যমে এই উপমহাদেশ থেকে আমের বীজ ও চারা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া আর আফ্রিকায় ছড়িয়েছে। অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথম দিকে পর্তুগিজ বণিকদের মাধ্যমে এই দেশ থেকে ফলটি ব্রাজিল, জ্যামাইকা ও মধ্য আমেরিকায় পৌঁছেছে। খ্রিস্টজন্মের ৫০০ বছর আগে দক্ষিণ ভারতের তামিল ও তেলেঙ্গানার মানুষ নৌপথে জাভা, সুমাত্রা, মালয়, কম্বোডিয়া, বোর্নিও অঞ্চলের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য করত। সেকালেই দক্ষিণ ভারত থেকে আম গিয়েছে মালয়ে। তবে উদ্ভিদবিদদের মতে, প্রথমে আম চাষের সূচনা হয় মালয় উপদ্বীপেই।

প্রাচীনকাল থেকেই কবি-লেখকেরা আমের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। সাহিত্যে এই ফলের উপস্থিতি বিপুল। এমন সুখ্যাতির কারণেই আমগাছের আরেক নাম কল্পতরু। এ ফলের সঙ্গে জড়িয়ে আছে রাজনীতি, গল্প, কাব্য, সংগীতসহ মানুষের নানা আচার আর সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড। নবাব, রাজা, জমিদার, সামন্ত ও ধনাঢ্য ব্যক্তিরা ভালো জাতের আমের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।

ইংরেজিতে ম্যাঙ্গো, বাংলায় আম। এই দুই শব্দেরই আছে ব্যুৎপত্তিগত ইতিহাস। ম্যাঙ্গো শব্দটি তামিল ভাষা থেকে এসেছে। তবে সরাসরি নয়। সে ভাষায় আমকে বলা হয় ‘মানকে’। ‘মান’ অর্থ আমগাছ আর ‘কে’ অর্থ ফল। সেটি বিকৃত হয়ে হয়েছে ‘মাংকে’। তামিলনাড়ু অঞ্চলের কন্যাকুমারিকাসহ এর পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে এসে পর্তুগিজরা ম্যাংকের দেখা পায়। সেটিকে তারা নিজেদের মতো করে ‘ম্যাঙ্গা’ ডাকা শুরু করে। এই ম্যাঙ্গাই ইংরেজিতে ‘ম্যাঙ্গো’ হয়ে এসেছে। আমের সংস্কৃত রূপ অম্র। তা থেকে আম্র; পরিশেষে আম। সংস্কৃতে অম্রের অর্থ হচ্ছে আম। আনুমানিক ৩ হাজার বছর আগে আর্যরা উত্তর ভারতের গঙ্গা, যমুনা-সরস্বতী অববাহিকায় এসে কাঁচা আম খেয়েছিল। তারা ফলটির নাম দিয়েছিল অম্র। টক স্বাদের জন্যই এমন নাম।

আমের বিভিন্ন নাম আছে। সেসবের ব্যাখ্যাও রয়েছে। যেমন ফুল থেকে ছোট আম হওয়ার পর ঝড়, শিলাবৃষ্টিসহ কিছু প্রাকৃতিক কারণে তা শাখা থেকে ঝরে পড়ে। এই ফলটিকে বলে ‘চ্যুত’। আরেক নাম সহকার।

 

প্রাকৃতিক পরাগায়নে আমের মুকুল সহায়ক হিসেবে কাজ করে বলে এর নাম হয়েছে সহকার। এর ফুল বসন্তের আগমনী বার্তা জানায়। তাই আমের একটি নাম বসন্তদূত। বেশ কিছু রাজার পছন্দের ফল ছিল আম। যেমন লক্ষ্মণ সেন। সম্রাট আকবরেরও প্রিয় ফলের তালিকায় আম শীর্ষে ছিল। এ ছাড়া অনেক নৃপতি এটিকে প্রিয় ফল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। তাই এর নাম হয়েছে নৃপপ্রিয়। পুরাণে আমের মঞ্জরিকে প্রেমের দেবতা মদনের পুষ্পশর বলা হয়েছে; যা পঞ্চশরের এক শর। এই বাণের আঘাতে তিনি প্রতিপক্ষকে পরাজিত করে প্রেয়সীর মনে প্রেমাবেগ জাগিয়েছিলেন। নিজে হয়েছিলেন কামাতুর। কামোত্তেজক বলে আমকে ডাকা হয় কামাঙ্গ, কামশর, কামবল্লভ ও সুমদন। মধুর স্বাদের হওয়ায় ফলটির নাম দেওয়া হয়েছে মাধুলি মধ্বারস ও সীধুরস। আমের রস দুধের সঙ্গে মেশালে হয় সোমধারা, যা শুক্রস্রোতকে শুদ্ধ ও বলবান করে। এই রস মাদকতার সৃষ্টি করে বলে আমের সমার্থক নাম মদাঢ্য। রসে ভরপুর হওয়ায় ফলটিকে রসাল নামেও ডাকা হয়। এর গাছে কোকিল বাস করে। তাই বৃক্ষটিকে অনেকে কোকিলাবাস কিংবা কোকিলোৎসব বলে। আমগাছের একটি নাম মন্মথালয়। কারণ, এটি প্রেম ও কামের দেবতা মদন বা মন্মথের আলয়। আমের মুকুলকে বলা হয় কামায়ুধ।

পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে আমবাগান সৃষ্টি ও আম উৎপাদন ছড়িয়ে দেয়ার পেছনে বৌদ্ধ সন্ন্যাসী, আরব বণিক, ইসলাম ধর্ম প্রচারক, খ্রিস্টান মিশনারি, পর্তুগিজ ও পারসিয়ানদের অবদান বেশি।

বৌদ্ধ ধর্মে আম গাছ অতি প্রয়োজনীয় উপকরন। তারা যেখানেই গিয়েছেন সেখানেই রোপন করেছেন আম গাছ। এভাবেই ব্যাপক ভাবে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে আম।

আম কত জাতের হতে পারে, সঠিক হিসাব নেই। গবেষকদের মতে বাংলাদেশেই আছে ১০ হাজার ধরনের। তবে এটি অনুমাননির্ভর গণনা। সারা বিশ্বে তালিকাভুক্ত আমের জাতসংখ্যা ১৫০০। বিজ্ঞানীদের অভিমত, পৃথিবীতে এই ফলের ধরন আছে ১০ হাজার। যেগুলোর অধিকাংশই তালিকাভুক্ত নয়। আম প্রায় ৯০ টি দেশে উৎপাদন হয়।

তবে আমকে বৌদ্ধদের পর সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিয়েছে বোধহয় সৌন্দর্য পিয়াসু ও উদ্যানপ্রিয় মোঘলরা। তারা তৈরী করেছেন আমবাগান। উদ্ভাবন করেছেন আমের প্রায় ৫০০ টি জাত। মোগলরা আমের বোঁটা মধু অথবা ঘি‘র মধ্যে রেখে আম সংরক্ষনের প্রনালী আবিস্কার করেছিল।

মুগল সম্রাট আকবর তাঁর শাসনামলে (১৫৫৬-১৬০৫ খ্রিস্টাব্দ) ভারতের লাখবাগের দারভাঙার সন্নিকটে প্রায় এক লক্ষ আম গাছ রোপন করেছিলেন। সেটিকে ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম সুসংগঠিত আমবাগান বলে মনে করা হয়।

ইতিহাস থেকে আমরা জানতে পারি, প্রাচীনকাল থেকেই অনেক ঐতিহাসিক পরিব্রাজক এ উপমহাদেশে এসেছেন। তারা আম দেখে ও খেয়ে মুগ্ধ হয়েছেন। এদের মধ্যে আছেন ইবনে বতুতা, হিউ-এন সাং ও ফাহিয়েন অন্যতম। আলেকজান্ডার ভারত আক্রমনের সময় সিন্ধুতে আম বাগানদেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন।

সারা পৃথিবীতে আম শুধু খাওয়া ও দেখার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি।

শিল্প, সংস্কৃতি ও ধর্মেও আমের ব্যাপক উপস্থিতি আছে। দেবী সরস্বতীর পূজার প্রধান উপকরণ এর মুকুল। বৈদিক শাস্ত্রমতে, উন্নত মানের পাকা আম দেবতা গণেশের খুব পছন্দের। ফলটি পূজার একটি অনুষঙ্গ। প্রার্থনাকালে তা থাকলে ভক্তের সিদ্ধিলাভ হয় এবং মনের উৎকর্ষ বাড়ে। গণেশ চতুর্দশী উৎসবেও লাগে আমপাতা। রামায়ণের অনেক শ্লোকে এই ফলের উল্লেখ আছে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শবদাহ করতে আমকাঠ ব্যবহৃত হয়। হিন্দু, বৌদ্ধ ও জৈনদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এর পাতার উপস্থিতি রয়েছে। এটিকে তারা মঙ্গলপ্রতীক ভাবে। গৌতম বুদ্ধ আমগাছের ছায়ায় বসে ধ্যান করেছেন। বৌদ্ধধর্মের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রায় দুই হাজার বছর ধরে আমপাতার ব্যবহার হচ্ছে।

অলংকরণশিল্পে ঠাঁই পেয়েছে আমের মোটিফ। খ্রিস্টপূর্ব ১৫০ অব্দে ভারতের সাঁচিতে নির্মিত বৌদ্ধ স্তূপায় আমগাছের নিচে লক্ষ্মীর মূর্তি খোদাই করা আছে। সেখানে এই ফলের আদলে আঁকা কিছু নকশাও দেখা যায়। এটিই আমের প্রাচীনত্বের নিদর্শন। ইলোরা ও আজান্তা গুহায় প্রাচীন ভারতীয় শিল্পকলা ও ভাস্কর্যে আমগাছ, পাতা, পুষ্পমঞ্জরি ও ফলটিকে তুলে ধরা হয়েছে। গৌড়ের সুলতান নুশরাত শাহ ১৫২৩ খ্রিস্টাব্দে রাজশাহীর অদূরে বাঘা নামের অঞ্চলে যে মসজিদ নির্মাণ করেন, সেটির দক্ষিণের মেহেরাব আমের টেরাকোটা মোটিফে অলংকৃত।

কম্বোডিয়ায় পাওয়া সপ্তম শতাব্দীর একটি লিপিতেও এ ফলের উল্লেখ আছে। ভারতের অনেক বাড়িঘরের দরজার খিলানে এখনো আমপাতার অলংকরণ দেখা যায়। সে দেশের সূচিকর্মেও এর মোটিফ লক্ষণীয়। কাশ্মীরি শাল, কাঞ্জিভরম ও রাজশাহী সিল্ক শাড়িতে আমপাতা কিংবা আম্রমঞ্জরির নকশা আঁকা থাকে। শত বছর ধরে বাংলাদেশের বয়নশিল্লীরা আম, পাতা ও গাছের নিখুঁত এমব্রয়ডারি করে আসছে কাপড়ে। এ রকমই একটি মোটিফ হচ্ছে আম্বি। আমের বিশেষ নকশা এটি। ভারতীয় সূচিকর্মের প্রধান একটি প্রতীক এই আম্বি। বিশ্বের অনেক দেশই কাপড়ে এই নকশা করে। ডিজাইনটি বর্তমানে বিশ্ববাজারে ভারতকে স্বকীয়ভাবে তুলে ধরেছে। মোগল আমলেই এর উৎপত্তি। তাদের কাশ্মীরি জামাভারশালে ম্যাঙ্গো-মোটিফ অঙ্কিত থাকত। কোম্পানি আমলে মোগলদের এই নকশা উপমহাদেশের বাইরে বিস্তৃত হয়। ইংল্যান্ডের নারীদের কাছে।


  • 3
    Shares

[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-barisaltribune@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]