ইউএনও’র উদ্যোগে নতুন বিদ্যালয় পেলো উজিরপুরবাসী


শিক্ষার আলোয় সর্বত্র আলোকিত করার প্রত্যয়ে বরিশালের উজিরপুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) মাসুমা আক্তার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের ব্যতিক্রমী উদ্যোগে পৌরবাসী পেয়েছে একটি নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়। মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে শেখ ফজিলাতুন্নেছা নামের ওই মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি যাত্রা শুরু করে। ইতোমধ্যে বিদ্যালয়টির জন্য পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রিপন মোল্লাসহ তার পরিবারের সদস্যরা জমি দান করায় ভবন নির্মানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

চলতি সপ্তাহের মধ্যেই বিদ্যালয়টিতে ভর্তি-পাঠদান শুরু হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার মাসুমা আক্তার। সূত্র মতে, উপজেলা পৌর সদরের ডব্লিউ. বি. মডেল ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশন বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হওয়ায় একদিকে শিক্ষার গুনগত মান উন্নত হচ্ছে অপরদিকে সংকট ও ভোগান্তিতে পড়েছে কয়েক শতাধিক স্বল্প মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী। এসব শিক্ষার্থীরা ওই বিদ্যালয়টিতে ভর্তি ইচ্ছুক হলেও মেধা তালিকায় না থাকার কারনে ভর্তি হতে পারেনি। পৌর সদরে ছাত্রীদের জন্য শেরে বাংলা পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থাকলেও ছাত্রদের লেখাপড়ার এটিই একমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যার ফলে চরম হতাশাগ্রস্থ হয়ে গত কয়েকদিন ধরে বিদ্যালয়টিতে ভর্তি হতে না পেরে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রধান শিক্ষকসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়িয়েছে। তাতেও কোনো সুফল না পেয়ে ভর্তি বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন। শিক্ষার জন্য ছাত্র-ছাত্রীদের এমন আগ্রহতে মুগ্ধ হয়ে শিক্ষানুরাগী উজিরপুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) মাসুমা আক্তার পৌর এলাকায় একটি নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের আগ্রহ প্রকাশ করেন।

 

আর সেই আগ্রহকে বাস্তবে রুপ দেয়ার জন্য ইউএনও মাসুমা আক্তারের সহযোগীতায় এগিয়ে আসেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। যার ফলপ্রসূ গত সোমবার (৭ জানুয়ারী) সকাল ১০টায় উপজেলা নির্বাহি অফিসার মাসুমা আক্তার, পৌরসভার জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এক আলোচনা সভায় করেন। এতে অংশগ্রহণ করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস.এম জামাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আঃ মজিদ সিকদার বাচ্চু, সহ-সভাপতি অশোক কুমার হাওলাদার, সাংগঠনিক সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান অপূর্ব কুমার বাইন রন্টু, পৌর মেয়র মো: গিয়াস উদ্দিন বেপারী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: সহিদুল হক, সমাজসেবক বিপ্লব মোল্লা, কাউন্সিলর রিপন মোল্লা ও বাবুল সিকদারসহ আরও অনেকে। সভায় সকলের সম্মতিক্রমে পৌর এলাকায় নতুন একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পাশাপাশি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিদ্যালয়ের সভাপতি রেখে পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

এ সময় বিদ্যালয়টি স্থাপনের জন্য জমিদাতা হিসেবে আগ্রহ প্রকাশ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত আঃ রশিদ মোল্লার সন্তান আহমেদুল কবির বিপ্লব মোল্লা, রফিকুল ইসলাম শিপন মোল্লা ও পৌর কাউন্সিলর রিপন মোল্লা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য জমি দানকে স্বাগত জানিয়ে ইউএনওসহ উপস্থিত সকলে তাৎক্ষনিক পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের হানুয়া গ্রামে মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি স্থাপনের স্থান পরিদর্শনে যান। সেখানে আবুল বাশার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশ্ববর্তী দানকৃত ওই জমিতে দ্রুত নতুন বিদ্যালয় স্থাপন ও অস্থায়ীভাবে শিক্ষার্থীদের স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর রিপন মোল্লার বাসভবনের নীচের তলায় পাঠদান দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন ইউএনও মাসুমা আক্তার।

 

এ ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নামে ৫০ শতক জমি দলিলের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিয়েছেন কাউন্সিলর রিপন মোল্লা ও তার দুই সহোদর। উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) মাসুমা আক্তার এই প্রতিবেদকে জানান, পৌর সদরে এ বিদ্যালয়টি স্থাপনের উদ্দ্যোগ নেয়া না হলে শত শত শিক্ষার্থীদের পায়ে হেঁটে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরের একটি বিদ্যালয়ে যেতে হতো। ইউএনও আরো জানান, উপজেলার সকল গ্রামে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি সারাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় নতুন মাত্রা সংযোজনের লক্ষ্যে নতুন বছরের শুরুতেই এই প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু হয়েছে। তাছাড়া পৌরসভার এই চরের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষিত হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও শেখ ফজিলাতুন্নেছা মাধমিক বিদ্যালয়টি গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে।


বরিশালট্রিবিউন.কম’র (www.barisaltribune.com) প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।