উন্নয়ন কাজে অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদে স্বরূপকাঠিতে মানববন্ধন


পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি পৌরসভার সড়ক মেরামতসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে সীমাহীন দুর্নীতির প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। দুর্নীতি বিরোধী সচেতন পৌরবাসীর ব্যানারে রোববার সকালে পৌর শহরের মূল বাজারের প্রধান সড়কে ওই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন পৌর মেয়র গোলাম কবিরের প্রচ্ছন্ন ছত্রছায়ায় তার নিজস্ব কিছু ঠিকাদার দিয়ে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ করানোর নামে সরকারি অর্থ লুটপাট করা হচ্ছে। পৌরসভার এসব দুর্নীতি বন্ধ করতে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন বক্তারা।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সম্পাদক মো. মহিবুল্লাহ ,সাবেক পৌর কাউন্সিলর মিয়া মো.আব্দুল ওয়াহাব,যুবলীগ নেতা মো. শহীদুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন সম্প্রতি নগর উন্নয়ন প্রকল্পের (আইইউআইডিপি) অর্থায়নে পৌর এলাকার বেশ ক‘টি সড়ক নির্মানের জন্য প্রায় চার কোটি টাকার কাজ মেয়রের পছন্দের ঠিকাদারদের গোপনে কার্যাদেশ দেয়া হয়।

ওই কাজের মধ্যে কোর্ট বিল্ডিং থেকে বৌ বাজার পর্যন্ত ৮৫লাখ টাকা ব্যয়ে একটি সড়ক মেরামত কাজ পায় তিশা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ওই কাজে সীমাহীন অনিয় দুর্নীতি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়।

ওই সড়ক নির্মান কাজের ঠিকাদার প্রথমে সড়কে থাকা পুরোনো কার্পেটিংএর পাথর স্ক্রাইফিং করে (চাষ করে) তুলে ফেলে প্রাক্কলন অনুযায়ী নতুন মেকাডাম করার কথা থাকলেও তিনি তা না করেই পুরোনো মেকাডামের উপরেই কার্পেটিং এর কাজ শেষ করার চেষ্টা করছেন।

এছাড়াও ভিটুমিন জ্বালানোর ক্ষেত্রে কোনো প্রকার মান নিয়ন্ত্রন না করেই অতিরিক্ত গুলিয়ে পাথরে মিশিয়ে নি¤œমানের কার্পেটিং এর কাজ করছে। ওই প্রভাবশালী ঠিকাদার নি¤œমানের কাজ করে বরাদ্ধের অর্ধেক টাকাই আত্মসাতের পায়তারা করছে।

এসব কাজের ক্ষেত্রে পৌরসভার প্রকৌশলীরাও নীরব ভুমিকা পালন করছে বলে বক্তারা অভিযোগ করেন। এছাড়াও পৌরসভা কর্তৃক বাস্তবায়িত অন্যান্য প্রকল্পের নির্মান কাজেও একইভাবে লুটপাট করার অভিযোগ তোলেন বক্তারা ।

এদিকে উন্নয়ন কাজে সীমাহীন লুটপাটের ব্যাপারে মেয়রের রহস্যজনক নিরবতার জন্য তাকে দুর্নীতির অংশীদার হিসেবে দোষারোপ করা হয়।। মানববন্ধনে করা দুর্নীতির অভিযোগের বিষয় জানতে চাইলে পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. গোলাম কবির দূর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সব নিয়ম মেনেই দরপত্র দেওয়া হয়।

পৌর সভার সব ঠিকাদাররাই টেন্ডারে অংশ নেন। তিসা এন্টারপ্রাইজের সঙ্গে তার কোন পার্টনার শিপ নেই। ঠিকাদারগন কাজ করেন মেয়র হিসেবে তিনিসহ পৌরসভার প্রকৌশলীরা কাজের তদারকীসহ কাজ বুঝে নেন। অনিয়ম হলে কাজ বাতিল করাসহ বিল বন্ধ করা হবে বলেও জানান।


বরিশালট্রিবিউন.কম’র (www.barisaltribune.com) প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।