খুনের পর রক্তাক্ত কাটা মাথা নিয়ে থানায়


আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর : মন্দিরে ঘুমন্ত লিটন ঘোষ (৫৫) নামের এক শ্রমিকের শরীর থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ব্যাগে ভরে থানায় গিয়ে হাজির হয়েছেন লবু দাস (৪৫) নামে এক ব্যক্তি। মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলা সদরের গৌর মন্দিরের নাট মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে।

 

লিটন ঘোষ কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর এলাকার মতি ঘোষের ছেলে। এ ঘটনায় লবু দাসকে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। লবু দাস উপজেলা সদরের নাছিরপুরের পরমানন্দ দাসের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, লবু দাস একজন চিহ্নিত মাদকসেবী। মাস ছয়েক আগে মতি দাস নামে তার এক চাচাকে হত্যার ঘটনায়ও সে অভিযুক্ত। এ ঘটনায় সম্প্রতি সে জামিনে ছাড়া পেয়ে আসে।

গৌর মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল চন্দ্র চৌধুরী জানান, লিটন ঘোষ নাসিরনগর উপজেলা সদরের ঘোষপাড়ায় তার আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। লবু দাস ও লিটন ঘোষ পূর্ব পরিচিতও ছিলেন না। মঙ্গলবার দুপুরে তিনি মন্দিরে ঘুমিয়েছিলেন। এ সময় লবু ধারালো দা দিয়ে লিটনকে হত্যা করে। এরপর শরীর থেকে মাথা আলাদা করে সেটি বাজারের ব্যাগে করে নিজেই থানায় নিয়ে যায়।

নাসিরনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজেদুর রহমান জানান, লিটন ঘোষ শ্রমিকের কাজ করেন। সে নাসিরনগরে তার বোনের বাড়িতে এসেছিল। কী কারণে তিনি খুনের শিকার হলেন আমরা এখনো বুঝতে পারছি না।

 

তিনি বলেন, লবু ব্যাগে করে থানায় মাথা নিয়ে আসে। সে বলে আরও মাথা আনবে। আমরা ধারণা করছি লবু দাস মানসিক রোগী। এ ঘটনার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন[email protected]এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]