চামড়া সিন্ডিকেটের মূলহোতা আ’লীগের নেতা: রিজভী


ক্ষমতাসীন দলের ‘সিন্ডিকেটের কারসাজিতে’ কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম কম। চামড়া ‘পাশের দেশে পাচার’ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তাঁর দাবি, এই সিন্ডিকেটের নেপথ্যে আওয়ামী লীগের এক বড় নেতা আছেন।

মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী। রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন হয়।

রিজভী বলেন, চামড়ার বর্গফুট প্রতি হাস্যকর দাম বেধে দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় তাদের সহায়তা করছে। দাম কমের কারণে চামড়া ব্যাপকভাবে পাচার হচ্ছে পার্শ্ববর্তী দেশে। এতিমের হক মারার এই কাণ্ডকারখানা যারা সিন্ডিকেট করেন চালাচ্ছে, বছরের পর বছর ধরে তারাও নিজেদের ধার্মিক বলে প্রচার করে।

রিজভী বলেন, বিএনপি সরকারের সময়ে যে চামড়া কয়েক হাজার টাকায় বিক্রি হতো এখন তা দুই-তিন শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সব জিনিসের দাম বাড়লেও দফায় দফায় কমতে কমতে দশ ভাগের এক ভাগে নেমেছে কাঁচা চামড়ার দাম।

তিনি বলেন, পাট শিল্প যেভাবে ধ্বংস করা হয়েছে, ঠিক সেই পথেই ধ্বংস করা হচ্ছে বাংলাদেশের ট্যানারি শিল্প। আর কতো টাকা সুইস ব্যাংকে পাঠানো সম্পন্ন হলে বাংলাদেশের জনগণ মুক্তি পাবে?

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমার অজুহাতে একটি সিন্ডিকেট বেশ কয়েক বছর ধরেই চামড়া নিয়ে কারসাজি করছে। এই সিন্ডিকেটের হোতা আওয়ামী লীগের এক নেতা। যার কারণে তাদের চামড়া নিয়ে অনাচার করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে, এই চক্রের স্বার্থ রক্ষা করছে সরকার।

প্রতিবছর কোরবানির ঈদের আগে চামড়া শিল্প সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে কোরবানির পশুর চামড়া সংগ্রহের জন্য ন্যূনতম দাম ঠিক করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তবে ট্যানারি মালিকদের দাবিতে গত বেশ কয়েক বছর ধরে ওই দাম কমতির দিকে।

কিন্তু এবারও ঈদের দিন বিকেলে চামড়ার দাম পড়ে গেলে ‘সিন্ডিকেটের কারসাজির’ অভিযোগ তোলেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা।

এবার ঈদযাত্রায় জনদুর্ভোগ নিয়েও সরকারের সমালোচনা করেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব।

রিজভী বলেন, সেতুমন্ত্রী কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে মানুষের চোখকে বিভ্রান্ত করার ব্যর্থ চেষ্টা করলেও ভুক্তভোগী মানুষ হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছে সড়ক, নৌ ও রেলপথে ঘরে ফেরার যন্ত্রণা।

খালেদা জিয়ার কারাবন্দিত্বের আজ ৫৫২তম কালিমালিপ্ত দিবস উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘গতকাল ঈদের দিন তার পরিবারের সদস্যরা সাক্ষাতের সুযোগ পেয়েছিলেন। তিনি এখন গুরুতর অসুস্থ। তার জীবন এখন সংকটময় অবস্থায় উপনীত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, আমিনুল ইসলাম, আবুল কালাম আজাদ ও আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী উপস্থিত ছিলেন।


[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন[email protected]এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]