পদ্মায় ২৫তম স্প্যান বসল আজ


আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসেই প্রায় পৌঁনে চার কিলোমিটার দৃশ্যমান হচ্ছে পদ্মাসেতু। শুক্রবার ২৯ ও ৩০ নম্বর পিলারে বসানো হবে সেতুর ২৫তম স্প্যান। সেতু নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, সেতুর ২৫তম স্প্যান এরইমধ্যে তিয়ানহো ক্রেনের সামনে রাখা হয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারি স্প্যানটি ক্রেনে তুলে নদীর চ্যানেল ধরে নিয়ে যাওয়া হবে। এ সময় শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি চ্যানেলটি সাময়িক বন্ধ থাকবে। ওইদিন সকালেই মাওয়া প্রান্ত থেকে স্প্যান নিয়ে বসানোর প্রক্রিয়া দিনে দিনেই শেষ করা হবে। ২৫তম স্প্যানটি বসানোর পর আর বাকি থাকবে ১৬টি স্প্যান বসানোর কাজ।

এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি পদ্মাসেতুর ২৪তম স্প্যান বসানো হয়। সেতুর জাজিরা প্রান্তের ৩০ ও ৩১ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যানটি বসানো হয়। এতে সেতুর ৩ হাজার ৬০০ মিটার দৃশ্যমান হয়। তার আগে ২ ফেব্রুয়ারি পদ্মাসেতুর ২৩তম স্প্যানটি বসানো হয়। ২৩তম স্প্যানের ৯ দিনের মাথায় ২৪তম স্প্যানটি বসানো হয়। এর ১০ দিনের মধ্যে বসানো হচ্ছে ২৫তম স্প্যানটি।

জানা গেছে, সেতুর ৪২টি পিলারের মধ্যে বাকি রয়েছে ১০, ১১, ২৬, ২৭ নম্বর পিলার। চলতি মাসে ১০ এবং ১১ নম্বর পিলারের কাজ শেষ হবে। আর ৮ নম্বর পিলারের কাজ শেষে এখন চলছে ক্যাপ ঢালাই। সিঙ্গেল ক্যাপ বসেছে এই ৮ নম্বরে। সেতুর ৭, ১৩, ১৯, ২৫, ৩১ ও ৩৭ নম্বর পিলার ছাড়া বাকি সবগুলোই সিঙ্গেল ক্যাপে।

জাজিরা প্রান্তে ২৬ ও ২৭ নম্বর পিলারের কাজ বাকি আছে। আর মাওয়া প্রান্তে ৬, ৭, ৮, ৯ এই চারটি পিলারের কাজ শেষ। বাকি রয়েছে ১০ ও ১১ নম্বর। চলতি মাসে ১১ নম্বর পিলারে ক্যাপ বসবে। এরপর আগামী মাসে ১০ নম্বর পিলারে ক্যাপ বসানো হবে। মাওয়া প্রান্তে ১৩ থেকে ১৯ নম্বর পিলারে রোডওয়ে ও রেলওয়ে স্লাব বসানোর কাজ চলছে।

স্বপ্নের পদ্মাসেতুর উপরে রোডওয়ে স্ল্যাব আর নিচে রেলপথ সমানতালে এগোচ্ছে। লক্ষ্য আগামী বছরের জুনে সেতু চালু করা। সেতু কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, এপ্রিলেই শেষ হবে বাকি পিলারের কাজ আর জুলাই মাসে শেষ হবে সবগুলো স্প্যান বসানোর কাজ। তখনই দেখা যাবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা পদ্মাসেতু।


[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন[email protected]এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]