পরকীয়ায় জড়িয়ে গৃহহারা কাওছারকে খুন-এক বছর পর কঙ্কাল উদ্ধার পুলিশের


পরকীয়ার টানে ঘর ছেড়ে এক বছর আগে নিখোঁজ হওয়া এক ‍যুবকের কঙ্কাল উদ্ধার করেছে পুলিশ। বরিশালের উজিরপুরে উপজেলায়র ওই যুবকের নাম কাওসার হাওলাদারের (৩৫)। পেশায় সবজি বিক্রেতা ছিল সে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের ভবানীপুর বাজার সংলগ্ন কাজী বাড়ির পেছনের একটি ডোবার কিনার থেকে কঙ্কালটি উদ্ধার করা হয়। এর আগে সেখানে কঙ্কালটি পরে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। কাউসার ওই এলাকার হালিম হাওলাদারের পুত্র, দুই সন্তানের জনক ছিলো সে।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে এলাকাবাসী কঙ্কালটি দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেয়। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ কঙ্কালটি উদ্ধার করে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সাংগ্রহ করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠিয়েছে।

পরনে থাকা জ্যাকেটের পকেটে একটি ভাঙ্গা মোবাইল ফোন, মোবাইল ফোনের চার্জার, মানিব্যাগ ও মানিব্যাগের মধ্য থেকে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। ওই জাতীয় পরিচয়পত্রটি ওটরা এলাকার নিখোঁজ কাওসার হাওলাদারের হওয়ায় কঙ্কালটি তার হতে পারে বলে ধারণা করা হয়েছে। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ জিয়াউল আহসান জানিয়েছেন, উদ্ধার হওয়া কঙ্কালের জ্যাকেটের পকেটে কাওসারের জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে। তারপরেও কঙ্কালটি কাওসারের কিনা তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এজন্য ডিএনএ পরীক্ষায় পাঠানো হয়েছে, রিপোর্ট পেলে সঠিকভাবে জানা যাবে। তবে প্রাথমকিভাবে ধারণা করা হচ্ছে হত্যার পরে ওই যুবকের লাশ ঘটনাস্থলে ফেলে রাখা হয়েছিলো।

এ ঘটনায় কাওসারের স্বজনদের লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি জিয়াউল আহসান আরও জানান, কাওসার প্রায় দেড় বছর আগে স্থানীয় এক নারীর সাথে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। ওই নারীর কারণে ২০১৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর স্ত্রী ও সন্তানদের ফেলে চলে যান কাওসার। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ ছিলেন।


[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-barisaltribune@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]