পরীক্ষায় নম্বর কম পাওয়ায় ঢাবি ছাত্রের আত্মহত্যা


পটুয়াখালী : গলাচিপায় সবুজ মিত্র (২২) নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। সবুজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ও উপজেলার চিকনিকান্দি ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের মৃত নিরঞ্জন মিত্রের ছেলে।

শুক্রবার ভোর রাতে নিজ ঘরের পিছনে আম গাছের সাথে গলায় লায়লন সুতার রশি দিয়ে সবুজ আত্মহত্যা করেন।

এ বিষয় সবুজের ছোট বোনের স্বামী ঝন্টু দেবনাথ বলেন, আমার স্ত্রীর বড় বোন সাবিত্রী রানী শুক্রবার ভোর ৬ টায় ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে গেলে আম গাছের সাথে সবুজের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। সাবিত্রী রানীর ডাকচিৎকার শুনে বাড়ির লোকজন ঘটনাস্থলে আসে। আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরও জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মিডটার্ম পরীক্ষায় সবুজ দুইটি বিষয়ের একটিতে ১৫ নম্বরের মধ্যে ১২ নম্বর পেয়েছেন এবং অন্যটিতে ১৫ নম্বরের মধ্যে ৫ নম্বর পেয়েছেন। একটি বিষয়ে নম্বর কম পাওয়ায় সবুজ মনের দুঃখে ঢাকা থেকে বৃহস্পতিবার সকালে নিজ গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। শুক্রবার ভোর রাতে নিজ ঘরের পিছনে আম গাছের সাথে গলায় লায়লন সুতার রশি দিয়ে সবুজ আত্মহত্যা করে।

পরে বাড়ির লোকজন গলাচিপা থানায় খবর দিলে এসআই মো.জাকির হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আখতার মোর্শেদ জানান, এ বিষয়ে থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে, মামলা নং-৫। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালীর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর গোলাম রাব্বানী বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। এ ব্যাপারে খোঁজ নেয়ার জন্য একজন শিক্ষককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।


বরিশালট্রিবিউন.কম’র (www.barisaltribune.com) প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।