মঠবাড়িয়ায় নারীকে হত্যার পর মুখে বিষ ঢেলে দেয়ার অভিযোগ


পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় এলিজা বেগম (৩০) নামে দুই সন্তানের জননীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উপজেলার দক্ষিণ সাপলেজা গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত ওই নারীর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শুক্রবার পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

নিহত নারীর পরিবারের অভিযোগ, এলিজার স্বামী ও শাশুড়ি মিলে তাকে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে আত্মহত্যা বলে প্রচারণা চালায়। এ ঘটনার পর থেকে গৃহবধূর স্বামী ও শাশুড়ি পলাতক রয়েছেন। নিহত এলিজা বেগম উপজেলার দক্ষিণ সাপলেজা গ্রামের নির্মাণ শ্রমিক নূর আলম পহল্লান এর স্ত্রী ও উপজেলার হাজীগঞ্জ গ্রামের মজিবর রহমান মুন্সির মেয়ে। নিহত ওই নারীর বাবা মজিবর মুন্সি অভিযোগ করেন, পারিবারিক কলহের জেরে জামাই নূর আলম আমার মেয়েকে প্রায়াই মারধর করে আসছিল ।

 

বৃহস্পতিবার রাতে মারধর করে হত্যার পর শ্বশুরবাড়ির লোকজন এলিজার মুখে বিষ ঢেলে আত্মহত্যা বলে প্রচারণা চালায়। তিনি আরো বলেন, খবর পেয়ে গিয়ে দেখি আমার মেয়ের মরদেহ মাটিতে ফেলে রেখে জামাই ও মেয়ের শাশুড়ি পালিয়ে গেছে। পরে মঠবাড়িয়া থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে আমার মেয়ের লাশ উদ্ধার করে।

 

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মাজাহার আমিন (বিপিএম) বলেন, পরিবারের অভিযোগে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলেই হত্যা না আত্মহত্যা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।