স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রতীকই থাকছে


ঢাকা : চলমান উপজেলা নির্বাচন ও এর ভোটার উপস্থিতি নিয়ে সারাদেশে চলছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। এরই মধ্যে গুঞ্জন উঠেছে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রতীক উঠিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। তবে এ বিষয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দলীয় ফোরামে কোনো ধরনের আলোচনা হয়নি। বিষয়টি গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছেন দলটির শীর্ষ কয়েকজন নেতা।

জানা গেছে, স্থানীয় সরকার (উপজেলা) (সংশোধন) বিল-২০১৫ পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে দলীয় প্রতীকে সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার। দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের শুরুটা হয়েছে সিটি ও পৌরসভার মেয়র নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। পরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও এটি প্রয়োগ করা হয়।

স্থানীয় সরকার (উপজেলা) (সংশোধন) বিল-২০১৫ এ বলা হয়েছে, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও দুটি ভাইস চেয়ারম্যান (সাধারণ ও সংরক্ষিত) পদে লড়ার জন্য প্রার্থীকে রাজনৈতিক দল কর্তৃক মনোনীত অথবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে হবে।

আইনটি পাস হওয়ার পর ২০১৭ সালের মার্চে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে ভোট হয় উপজেলায়। এর দুই বছর পর পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট শুরু হয় গত ৯ মার্চ।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলা নির্বাচনের পরিস্থিতি নিয়ে বেশ বিব্রত দলের হাইকমান্ড। তবে কাউন্সিলের আগে দলের সকল সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে। দলীয় প্রতীকে নির্বাচনের ফলে তৃণমূলে যে অনৈক্য সৃষ্টি হয়েছে সেটা সমাধানে জন্য ঈদুল ফিতরের পর দলের প্রবীণ নেতারা নাঠে নামবেন।

জানা যায়, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগই গত টার্মে দলীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচনের রেওয়াজ শুরু করেছিলো। তাই এখন এটি বাদ দিলে স্ববিরোধী হয়ে যাবে বলে মনে করছেন দলটির নীতি নির্ধারকরা। তাই এই মুহূর্তে এটি বাতিল করার কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম জানান, কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রতীক থাকবে কি থাকবে না এ ধরনের কোনো প্রসঙ্গই উঠেনি। কিছু কিছু অনলাইনভিত্তিক পত্রিকা কিসের ভিত্তিতে এই নিউজ করছে সেটা আমার জানা নেই। শুধু আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী বৈঠকে নয়, আওয়ামী লীগের কোনো দায়িত্বশীল ফোরামেও প্রতীক উঠিয়ে দেওয়া সংক্রান্ত কোনো ধরনের আলোচনা হয়নি।

এর আগে, কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রতীক আর থাকছে না। এ বিষয়ে প্রাথমিক নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। গত ২৯ মার্চ গণভবনে দলটির সভাপতিমণ্ডলীর এক বৈঠকে এ নিয়ে দীর্ঘ সময় আলোচনা হয়। ওই বৈঠকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ তুলে দলটির বেশ কয়েকজন নেতা স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রতীক না রাখার পক্ষে জোরালো মত দেন। তবে আরেকটি অংশ প্রতীক রাখার পক্ষে নানা যুক্তি তুলে ধরেন। তাদের মতে, উপজেলা নির্বাচনের বর্তমান পরিস্থিতি সাময়িক।