মির্জাগঞ্জে সিভিল সার্জনের স্বাক্ষর জাল

স্যানিটারী ইন্সেপেক্টরে বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে লাইন্সেস দেয়ার অভিযোগ

  • 14
    Shares

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:  পটুয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ও জেলা স্যানিটারী ইন্সেপেক্টরের স্বাক্ষর জাল-জ্বালিয়াতি করে ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্টানে নামে লাইসেন্স দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারী ইন্সেপেক্টর মোঃ মাকছুদুর রহমানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিত্বে মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তদন্ত পূর্বক এর সত্যতা পেয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন অফিসে।

জানা যায়, মির্জাগঞ্জ উপজেলার মহিষকাটার বাজারের মের্সাস খন্দকার ষ্টোর,মের্সাস জসিম ষ্টোর এন্ড রেন্টুরেন্ট,মের্সাস আয়শা হোটেল এন্ড রেষ্টুরেন্ট, পায়রাকুঞ্জু বাজারের মের্সাস খান ষ্টোরসহ চারটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সে পটুয়াখালী সিভিল সার্জনের স্বাক্ষর জাল করে লাইন্সেস দেয়া হয় এবং চারটি লাইন্সেসের তিনটিতে পটুয়াখালী জেলা স্যানিটারী ইন্সেপেক্টরের কোন স্বাক্ষর নেই। অন্য একটি লাইন্সেসে জেলা স্যানিটারী ইন্সেপেক্টরের স্বাক্ষর থাকলেও সেটিও জাল জ্বালিয়াতি করা হয়েছে।

এব্যাপারে উপজেলা স্যানিটারী ইন্সেপেক্টর মোঃ মাকছুদুর রহমান এ ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, আমি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জাল-জ্বালিয়াতি করে লাইন্সেস দেই নাই এবং লাইন্সেসে কে স্বাক্ষর দিয়েছে তা আমি জানি না। আমার অভিযোগের বিষয়ে লিখিত জবাব দিয়েছি।

এব্যাপারে মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ দিলরুবা ইয়াসমিন লিজা এর সত্যতা স্বীকার করে বলেন,অভিযোগটি তদন্ত করে পটুয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ও জেলা স্যানিটারী ইন্সেপেক্টরের স্বাক্ষর জাল-জ্বালিয়াতির সত্যতা পাওয়ায় গেছে এবং এর প্রতিবেদন সিভিল সার্জন অফিসে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।


  • 14
    Shares

[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন[email protected]এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]