সড়ক দখল করে এমপির স্থায়ী তোরণ


সিরাজগঞ্জে সয়দাবাদ-এনায়েতপুর পাকা সড়কের ফুটপাত ও সড়কের একাংশ ভেঙে নির্মাণ করা হয়েছে শুভেচ্ছা তোরণ। স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) আব্দুল মমিন মন্ডলের পক্ষ থেকে গত ঈদুল ফিতরে এলাকাবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে দৃষ্টিনন্দন এই তোরণ নির্মাণ করা হলেও এখনও তা সরানো হয়নি।

পার্শ্ব রাস্তার খোয়া-পাথর তুলে এবং মূল সড়কের ফুটপাত ও গাইডওয়াল খুঁড়ে নির্মাণ করা হয়েছে এমপির ১০টি লোহার স্থায়ী তোরণ। এতে ব্যস্ততম এই সড়কটিতে যানবাহন চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এড়াছাও তোরণের জন্য গর্ত খুড়ে স্থায়ী ঢালাইয়ের কারণে যে ফাঁকা অংশ তৈরি হয়েছে তা দিয়ে পানি চুইয়ে গর্তের সৃষ্টি হয়ে রাস্তার ক্ষতি হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে সিরাজগঞ্জ-৫ নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। তবে এ নিয়ে সংসদ সদস্য নিজে কিছু না বললেও স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলছেন, সমস্যা হলে এগুলো সরিয়ে ফেলা হবে।

সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ ৪টি থানার মানুষের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে সয়দাবাদ-এনায়েতপুর সাড়ে ১৯ কিলোমিটার সড়ক। যা সিরাজগঞ্জ শহর ও ঢাকার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় রাস্তাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া এই সড়ক দিয়েই খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ ও মাজার শরীফে যেতে হয়। বর্তমানে জনবহুল এই এলাকার ব্যস্ততম সড়কে কোনো রকম নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সড়কটি এবং এর পাশের বাইলেন রাস্তাটি দখল করে লোহার পিলার দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ১০টি বিশাল-বিশাল তোরণ।

যা পোক্ত করতে রাস্তা গভীর করে খুঁড়ে সিমেন্ট-পাথর দিয়ে ঢালাই দেয়া হয়েছে। এতে রাস্তার পূর্ব পাশের ফুটপাত ও পশ্চিম পাশের বাইলেন রাস্তার মাঝখান পুরোপুরি দখল করা হয়েছে। ঢালাইয়ের চারপাশের ফাঁকা অংশ দিয়ে বৃষ্টির পানি চুইয়ে রাস্তার ক্ষতি হচ্ছে। কোথাও কোথাও রাস্তার গাইড ওয়ালের মাটি সড়ে রাস্তার ক্ষতি হচ্ছে। মমিন মন্ডল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডল সাড়া বছর নিজের শুভেচ্ছা ব্যানার লাগানোর জন্য এই তোরণ নির্মাণ করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, এনায়েতপুর ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের পাশ, আজগড়া মহিউস সুন্নাহ মাদরাসার পাশ, মেঘুল্লা, কামারপাড়া, বেলকুচি পৌরসভার সামনে, মুকন্দগাঁতী, চালা, সুবর্ণসাড়া, আমবাড়িয়া ও সমেশপুর সড়কে নির্মিত ১০টি তোরণে সংসদ সদস্য মমিন মন্ডলের ঈদ শুভেচ্ছার দৃষ্টিনন্দন ব্যানার শোভা পাচ্ছে। ব্যানারগুলোতে লেখা রয়েছে ‘বেলকুচি, চৌহালী ও এনায়েতপুরের সর্বস্তরের জনগনকে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর এর শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক, আব্দুল মমিন মন্ডল, সংসদ সদস্য-৬৬, সিরাজগঞ্জ-৫’। তবে সড়ক দখল করে এমন তোরণ নিয়ে এখন সমালোচনা চলছে সব মহলে। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসন ও সড়ক বিভাগকে মৌখিকভাবে অভিযোগও করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রুহুল আমিন সোহাগ জানান, এটি একটি ব্যস্ততম সড়ক। এই সড়কে প্রতিদিন হাজার হাজার বাস ও ট্রাক চলাচল করে। রাস্তা খুঁড়ে তোরণ নির্মাণ করায় যানবাহন চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া মূল রাস্তার সঙ্গে গাইডওয়াল খুঁড়ে তোরণের পিলার করায় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ ব্যাপারে বেলকুচি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক সরকার জানান, ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানাতে এ সকল তোরণ তৈরি করা হয়েছে।

তবে রাস্তা দখল করে খুঁড়ে কেন স্থায়ীভাবে তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, যদি এতে সমস্যার সৃষ্টি হয় তবে এগুলো ভেঙে দেয়া হবে।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম প্রামাণিক জানান, এরই মধ্যে এ সকল তোরণ দেখার জন্য লোক পাঠানো হয়েছে। কোথাও কোথাও তোরণ কারা লাগিয়েছে তাদের পরিচয় মেলেনি। তবে সিরাজগঞ্জে সায়দাবাদ এনায়েতপুর সড়কের ১০টি স্থায়ী তোরণ স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডলের করা। এ মাসেই সকল তোরণ ভাঙার জন্য চিঠি ইস্যু করা হবে।


[প্রিয় পাঠক, আপনিও (www.barisaltribune.com) বরিশালট্রিবিউনের অংশ হয়ে উঠুন। আপনার এলাকার যে কোন  সংবাদ, লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-barisaltribune@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]