৩ কোটি টাকার ধানবীজ পাচার ৪ উপ-পরিচালক বরখাস্ত

  • 31
    Shares

কৃষি খামার থেকে প্রায় ৩ কোটি টাকার ১২৯ মেট্রিক টন ধানের বীজ চুরি করে পাচারের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঝিনাইদহের মহশেপুর উপজেলার দত্তনগর কৃষি খামারের তিন উপপরিচালকসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।সাময়িক বরখাস্ত হওয়া চার কর্মকর্তারা হলেন, দত্তনগর কৃষি খামারের গোকুলনগর বীজ উৎপাদন খামারের উপপরিচালক তপন কুমার সাহা, করিঞ্চা খামারের উপপরিচালক ইন্দ্রজিৎ চন্দ্র শীল, পাথিলা খামারের উপপরিচালক মো. আক্তারুজ্জামান তালুকদার ও যশোর বীজ প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্রের উপপরিচালক মো. আমিন উল্ল্যা।


বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) সচিব আবদুল লতিফ মোল্লা স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে সোমবার তাদের বরখাস্ত করা হয়। সেই সঙ্গে সচিব আব্দুল লতিফ মোল্লা স্বাক্ষরিত চিঠি বরখাস্তকৃত কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়।

বরখাস্তের আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে, বহিষ্কৃত কর্মকর্তাদের কর্মকাণ্ড ছিল দায়িত্বে অবহেলা, অসদাচরণ, চুরি ও আত্মসাৎ। এ অবস্থায় যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কর্মস্থলের বাইরে যেতে পারবেন না ওসব কর্মকর্তারা। সাময়িক বরখাস্ত থাকা অবস্থায় বিধি মোতাবেক খোরপোষ ভাতা পাবেন তারা।

সচিব আবদুল লতিফ মোল্লা স্বাক্ষরিত চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, বিধিবহির্ভূতভাবে অসৎ উদ্দেশ্যে স্বীয় স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য গোকুলনগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামারে ২০১৮-১৯ উৎপাদন বর্ষে কর্মসূচিবহির্ভূত অতিরিক্ত ১২৯ দশমিক ২২ মেট্রিক টন এসএল-৮এইচ হাইব্রিড জাতের ধানের বীজ প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্র যশোরে পাঠানো হয়। এসব কর্মকর্তা অতিরিক্ত বীজ উৎপাদনের পরিমাণ নিয়ম অনুযায়ী মজুত ও কাল্টিভেশন রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করেননি। এমনকি অতিরিক্ত কোনো বীজ পাঠানোর কোনো চালান বা তথ্যপ্রমাণ খামারে রাখেননি তারা। এসব ধান বীজ অসৎ উদ্দেশ্যে নিজেরা আত্মসাৎ করার জন্য সংরক্ষণ ও উৎপাদনবিষয়ক প্রকৃত তথ্য গোপন করেছেন বলে প্রমাণিত হয়।

জানা যায়, ২০১৮-১৯ উৎপাদন বর্ষে দত্তনগর খামারের আওতাধীন গোকুলনগর বীজ উৎপাদন খামার থেকে উৎপাদিত ১১৭ দশমিক ২৬০ মেট্রিক টন ও পাথিলা বীজ উৎপাদন খামার থেকে উৎপাদিত ৬৯ দশমিক ৫০০ মেট্রিক টন, মোট ১৮৬ দশমিক ৭৬০ মেট্রিক টন এসএল-৮ এইচ জাতের হাইব্রিড বীজ যশোর বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রে পাঠানো হয়। কিন্তু যাচাইয়ের মাধ্যমে আরও অতিরিক্ত ১২৯ দশমিক ২২০ মেট্রিক টন বীজ পাওয়া যায়। তদন্তে বেরিয়ে আসে গোকুলনগর বীজ উৎপাদন খামার থেকে উৎপাদিত ৭৫ দশমিক ৭৫ মেট্রিক টন, পাথিলা বীজ উৎপাদন খামার থেকে ৩২ দশমিক ১১০ মেট্রিক টন ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামার থেকে ২২ দশমিজ ৩৫ মেট্রিক টন এসএল-৮ এইচ জাতের হাইব্রিড বীজ কোনো ধরনের চালান ছাড়াই যশোর বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্রে অতিরিক্ত মজুত করা হয়।

একই সঙ্গে মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর গোকুলনগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামার থেকে কৌশলে এই বীজ চুরি করে বিক্রির জন্য যশোর শেখহাটী বীজ প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্রে পাঠানো হয়। বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পান তদন্ত কর্মকর্তারা।

বিএডিসির জিএম (বীজ) নুরুন নবী সরদার ও অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপক (খামার) তপন কুমার আইচ মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর বীজ উৎপাদন খামার পরিদর্শন করে তদন্ত করেন। এরপর চুরির বিষয়টি প্রমাণিত হওয়ায় ওই চারজনকে বরখাস্ত করা হয়।

কমল স্বর্ণের দাম

জাগো
দেশের বাজারে কমল স্বর্ণের দাম। গেল আগস্ট মাসে টানা চারবার বাড়ানোর পর অবশেষে স্বর্ণের দাম কমানো ঘোষণা দিয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। সব মানের স্বর্ণে প্রতি ভরিতে এক হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করেছে সংগঠনটি।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস এ তথ্য জানিয়েছে। বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) থেকে স্বর্ণের এ নতুন দাম কার্যকর হবে।

এর আগে আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে বলে দাবি করে আগস্ট মাসের ৬, ৮, ১৯ ও ২৭ তারিখ স্বর্ণের দাম বাড়ায় বাজুস।

নতুন দাম অনুযায়ী ভরি প্রতি স্বর্ণে ১ হাজার ১৬৬ টাকা পর্যন্ত কমানো হয়েছে। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে রুপার দাম।

নতুন দর অনুযায়ী, প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের স্বর্ণ ৫৬ হাজার ৮৬২ টাকা, ২১ ক্যারেট ৫৪ হাজার ৫২৯ এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ বিক্রি হবে ৪৯ হাজার ৫১৩ টাকায়। আর সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের ভরি কমে দাঁড়াবে ২৯ হাজার ১৬০ টাকা। আর প্রতি ভরি ২১ ক্যারেট রুপার (ক্যাডমিয়াম) দাম পূর্বের নির্ধারিত ৯৩৩ টাকাই বহাল রাখা হয়েছে।

সারা দেশের স্বর্ণের দোকানগুলোতে মঙ্গলবার ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৫৮ হাজার ২৮ টাকা, ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ ৫৫ হাজার ৬৯৫ এবং ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ প্রতি ভরি ৫০ হাজার ৬৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া সনাতন পদ্ধতিতে স্বর্ণ ৩০ হাজার ৩২৬ টাকা আর রুপা ৯৩৩ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা জানান, দেশের স্বর্ণের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে সঙ্গে ওঠা নামা করে। আন্তর্জাতিক বাজারে কিছুটা হ্রাস পাওয়ায় দেশীয় বুলিয়ন মার্কেটেও স্বর্ণের মূল্য হ্রাস পেয়েছে।


  • 31
    Shares

বরিশালট্রিবিউন.কম’র (www.barisaltribune.com) প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।