সংবাদ শিরোনাম :
মার্কিন রাষ্ট্রদূতের গাড়িতে হামলার দায়ে নানকের ভিসা বাতিল?   ⏺️  কমিশনার-ডিসিদের রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট   ⏺️  রাঙ্গাবালীতে সংঘর্ষের ঘটনায় ৪৫ জন আসামি, গ্রেফতার ২০   ⏺️  ভোটাররা যদি কেন্দ্রে যেতে না পারেন সেজন্য সরকার দায়ী থাকবে   ⏺️  নির্বাচন কমিশন ব্যথিত-বিব্রত: সিইসি   ⏺️  মোহাম্মদ জসিম-এর পাঁচটি কবিতা   ⏺️  নিখোঁজের তিন দিন পর মেহেন্দিগঞ্জের ওষুধ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার   ⏺️  নোয়াখালীতে যুবলীগ নেতাকে গুলি করে খুন   ⏺️  চলচ্চিত্রকার খিজির হায়াৎ হত্যার পরিকল্পনাকারী দুই জঙ্গি রিমান্ডে   ⏺️  তুরস্কে পুলিশ বিভাগে গোলাগুলি, রাজ্য পুলিশপ্রধান নিহত

সংখ্যালঘু নির্যাতনকারী সঞ্জয়ের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় জিডি


স্টাফ রিপোর্টার  || বরিশালট্রিবিউন.কম ||   প্রকাশিত:  ডিসেম্বর ৫, ২০১৮


২০০২ সালে সংখ্যালঘু নির্যাতনের মিথ্যা অভিনয়কারী আবার ও পুলিশ দিয়ে শ্রমিক নির্যাতন করে লাইম লাইটে এসছে।
নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চাকুরীরতরা বেতন না দিয়ে তাদের মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাসিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়ার ঘটনা ঘটেছে বিগত ২০০২ সালে সংখ্যালঘু নির্যাতনের মিথ্যা অভিনয়কারী , ট্রান্সকম কোম্পানি পেপসির ডিলার সঞ্জয় ঘোষের বিরুদ্ধে। বরিশালের উজিরপুর উপজেলা গুঠিয়া গ্রামের অরুপদাস গত মঙ্গলবার কাউনিয়া থানায় এক জিডিতে এ অভিযোগ করেন। জিডি নং-৩২।

জিডিতে তিনি অভিযোগ করে উল্লেখ করেন সঞ্জয় ঘোষ তার ২ মাসের বেতন না দিয়ে চাকুরী থেকে বের করে দেন।উপরন্তু মিথ্যা মামলায় ফাসিয়ে দেয়া সহ প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এ দিকে অরুপদাস সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন- সঞ্জয় সুন্দর মুখের আড়ালে এক ভয়ংকর মানুষ। নিজ প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের বেতন বেশী দিন বকেয়া রেখে এক সময়ে তাকে ছাটাই করে দেয় সে। বেতন চাইতে গেলে তাদের মামলায় ফাসিয়ে দেয়। শুধু অরুপ নয় প্রিন্স নামে আরো এক যুবককে সে বেতন নাদিয়ে তাড়িয়ে দেয়। বেতন চাইতে গেলে পুলিশ দিয়ে মিথ্যা মামলার হুমকি দেয় সে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ১৭ মাসের বকেয়া বেতন চাইতে গেলে ইতোমধ্যে দিলীপ চ্যাটার্জী ভোলা, ফরহাদ গাজীকে মিথ্যা মামলা দেয় সঞ্জয়। কাউনিয়া থানা পুলিশ ভোলাকে নির্মম ভাবে অত্যাচার করলে তাকে জেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ইতোমধ্যে ভোলার স্ত্রী সঞ্জিতা চ্যাটাজী পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত ভাবে নির্মম নির্যাতনের চিত্র তুলে এর বিচার দাবী করলে পুলিশ কমিশনার এই ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দেন।

সঞ্জয়ের ডিলার অফিস এখন তাই শ্রমিক নির্যাতনের আখরায় পরিণত হেেছ। দরিদ্র মানুষরা কাজের আশায় কয়েক মাস এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করার পরই শুরু হয়ে যায় ষড়যন্ত্র। একটু একটু করে বেতন বকেয়া রাখা হয়- চাইতে গেলে চলে মামলার হুমকি-পুলিশী ভয়। সঞ্জয়ের এই ব্যবসায়িক জগত ঘিরে শ্রমজীবী মানুষের নিপীড়নের এই চিত্রটি অধিকতর তদন্তের দাবী করেছেন ভুক্তভোগীরা।